Uncategorized

নীরব সত্তাকে করি জাগ্রত

নীরব সত্তাকে করি জাগ্রত
বাপ্পি সাহা

নীরবে চলি,মাঝে মাঝে চলতেও হয়।
কখনো কখনো
নিজেকে ভাঙ্গি নিজেই গড়ি
নীরব সত্তাকে করি জাগ্রত।
নীরব এঁকে চলি শুধু এই পৃথিবীর জন্য আমার পদচিহৃ।
নতুন অালোয় হয় ঝলমল
চলতে হয় সময়ের প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে।

বুকে ধারন করি সত্য, সুন্দর ও কল্যাণের নাম মন্ত্র।
নীরব আলোয় পথ খুঁজে বেড়াই শূন্যের মাঝে
শূন্যেই শুরু শূন্যেই শেষ
মাঝ পথে নীরবধি অথৈই জল।
যতো মায়া এই অদৃশ্য পৃথিবীতে
সব কিছু হবে একদিন কাল্পনিক
কেউ কারোর জন্য নয় সময়,
কেউ আমার জন্যও নয়

আমি কাঁদি
আমিও কাঁদি।

আমি কাঁদতে কাঁদতে শিখে গেছি কিভাবে কাঁদতে হয়
সত্য মিথ্যের পাহাড় ঠেলতে ঠেলতে বুঝে গেছি কিভাবে মিথ্যের গ্রাস থেকে  সত্যকে তুলে আনতে হয়,
মানুষ সত্যিই বহুরূপী মন
তার চারিত্রিক ভাব
সম্পর্কের আড়ালে চলে বেহায়াপনা
প্রয়োজনের কাউকে পন্য বানাতে করেনা দ্বিধা
যেমন পা চাটা কুকুরের থেকেও অধম।
নষ্ট পৃথিবী কষ্ট পৃথিবী
কষ্ট সেতো নিত্যদিনের
কলমের সুদ কলমেই হবে…  অহংকারির মুখোশ যাবে খুলে।
সত্যের মুখোশ উন্মোচিত হবে
কে ভালো কে মন্দ।

সুন্দর অসুন্দরের অভিনয়
নিজের সত্তা এখন নেই নিজের মত
শান্তি… চাই
জাগ্রত হোক নিজ সত্তার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *