কবিতা

বিজয়া দাস এর কবিতা || লকডাউন বনাম জীবন

লকডাউন, ষাটডাউন
খোলা এবার গোডাউন
সাবধান গোডাওন কিন্তু বন্ধ
এবার চোখ সবার অন্ধ।

শার্টারের ভেতর চলছে দোকান
বাহিরে চলছে মেজিষ্ট্রেটের স্লোগান।

ভয় নাই কাষ্টমার, আমি আছি ভাই
মোবাইলের কলে আমি এসে হাজির
বসবেন ভেতরে ঝুলবে তালা বাহির।

নিয়ে যান বেশি করে
লকডাউনে দাম যদি বাড়ে
না, ভাই গরিব মধ্যবিত্ত বলে কথা
টাকা না থাকলে জীবটাই বৃথা!

বাড়ির দরজায় চাহিদার কড়া নাড়ে
অফিসের বেতন কি আর বাড়ে?

বস বলে বেতন তোমার অর্ধেক
লকডাউন নেই কোন ছুটি
থেকে যাও অফিসের আস্তাকুঁড়ে
বোনাস মিলবে না কান যেন শুনে।

দেখেন আবার এবার নতুন কান্ড
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নাকি বন্ধ!
ছেলে বলে মোবাইলে চলছে পড়ালেখা,
বউ বলে কিনতে হবে ডাটা।

অফিস থেকে ফিরতে কিনলাম ডাটা
সাথে ছিল দুখানা প্যাকেট আটা
হলো তবে সকালের সবজি আর রুটি।
বউ আমার বেজায় হবে খুশি।

ছেলের নাকি আজ গনিত ক্লাস
ক্লাস না করলে ম্যাডাম করে ফোসফাস।
আমি গেলাম তেড়ে
বাসায় বসে আসিছ মেধাশূন্য করে।

ছেলে বলে দেউনি আমায় মোবাইল ডাটা ভরে,
শোনে আমার রক্তচক্ষু ঘোরে
বাপের জন্মেও শুনেনি এমন কথা
মোবাইলটা নাকি ডাটায় 4G ঘুরে!!

বউ বলে এতো খাবার ডাটা নয়
এতে নাকি ফেসবুক, মেসেঞ্জারে ক্লাস চালু হয়।
যা বাপ কিনে আন তোর ডাটা
না বুঝলে ভাই জীবন ষোল আনাই বৃথা।

চলছে এবার মোবাইলে ক্লাস,
উওর জিজ্ঞেস করতেই ছেলে বলে
ম্যাডাম আমার নেটওর্য়াক 4 G নষ্ট।
ক্লাস শেষে বলছে কথা বন্ধুর সাথে
খেলবে নাকি ফ্রি ফ্রায়ারের খেলা,
বউ আমায় সুধায় এতো ডিজিটাল
ছেলেবেলা।

আসলে ভাই করোনা কোন রোগ নয়
করোনার ছলে মানুষের মস্তিষ্কের ক্ষতি হয়।
না বুঝলে জীবনটা বৃথাই হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button