নিউজ জাহাঙ্গীর হোসেন

রাবি সঙ্গীত বিভাগের সকল অনিয়মের হোতা অসিত রায় || জাহাঙ্গীর হোসেন

জাল সনদ ও তথ্য গোপন এবং স্ত্রীকে নিয়ম বহির্ভুত নিয়োগ দেওয়াসহ বেশ কিছু অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের অধ্যাপক অসিত রায়ের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বৃহস্পতিবার রাতে ৪৮২ তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেন সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক আব্দুল আলীম।
অধ্যাপক আব্দুল আলীম বলেন, সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষক কৃষ্ণপদ মণ্ডল, ড. দীনবন্ধু পালের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞানের অধ্যাপক গোলাম কবীরকে আহবায়ক করা হয়েছে। বাকী দুজন সদস্য হলেন- রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক লায়লা আরজুমান্দ বানু ও জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক বিশ্বনাথ শিকদার।
জানা যায়, অধ্যাপক ড. অসিত রায় তৃতীয় বিভাগ ও ডিগ্রীর সনদ দিয়ে চাকুরিতে যোগদান করেন। পরবর্তীতে নিয়মের ব্যতয় ঘটিয়ে মৌখিক পরীক্ষা না দিয়েই পিএইডি ডিগ্রী অর্জন করেন। এছাড়াও নিয়মবহির্ভূতভাবে পদোন্নতিসহ বেশ কিছু অভিযোগ উঠে ড. অসিত রায়ের বিরুদ্ধে। ২০০৯ সালে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ফায়েকউজ্জামানকে আহবায়ক করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি তাঁর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের সত্যতা পায় এবং তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের ‍সুপারিশ করে। কিন্তু অদৃশ্য কারণে কর্তৃপক্ষ শাস্তিমূলক কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।
অতপর ড. রায়ের বিরুদ্ধে কোনো ধরণের ব্যবস্থা না নেওয়ায় আবারও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। নিজ স্ত্রী ও সঙ্গীত বিভাগের বর্তমান সভাপতি পদ্মিনী দে এর নিয়োগের সময় অনিয়ম, শিক্ষকতার ধাপে ধাপে তথ্য গোপনসহ বেশ কিছু অভিযোগ দাঁড় করেন তাঁর সহকর্মী সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষক কৃষ্ণপদ মণ্ডল, ড. দীনবন্ধু পাল। এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর বিরুদ্ধে উদ্ভিদ বিজ্ঞানের অধ্যাপক গোলাম কবীরকে আহবায়ক করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
এছাড়া একই বিভাগের শিক্ষক মাফরুহা হোসেন সেঁজুতির মৃত্যুর পর বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের মরদেহে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনেও বাঁধা দিয়েছেন তিনি। সঙ্গীত গবেষণায় আলোচিত কোন চরিত্র সামনে আসলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করাও তার অন্যতম একটি দায়িত্ব বলে সকলে মনে করেন। নিজের স্ত্রী ছাড়া কোন নারী কণ্ঠশিল্পীকে তিনি গণ্য করেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *